ডাঃ বিএম বেনজীর আহমেদ

আমি ডাক্তার বেনজীর একজন ক্ল্যাসিক্যাল হোমিওপ্যাথ। আমি পৃথিবীর সর্বাধিক পরিচিত ও স্বনামধন্য হোমিও প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠান – ইন্টারন্যাশনাল এ্যাকাডেমি অব ক্ল্যাসিক্যাল হোমিওপ্যাথি (আইএসিএইচ, গ্রীস) হতে হোমিওপ্যাথিতে উচ্চতর ডিগ্রী অর্জন করেছি। আইএসিএইচ প্রতিষ্ঠা করেন বিশ্বখ্যাত হোমিও গুরু প্রফেসর জর্জ ভিথোলকাস। হোমিওপ্যাথিতে তার অবদানের স্বীকৃতস্বরূপ তিনি ১৯৯৬ সালে অলটারনেট নোবেল পুরস্কার বা রাইট লাইভলিহুড এ্যাওয়ার্ড প্রাপ্ত হন। ইতিমধ্যে  ৭৫ টি দেশের ২০ হাজার মেডিক্যাল ডক্টর ও হোমিওপ্যাথ তাঁর নিকট প্রশিক্ষণ গ্রহণ করে অত্যন্ত সফলতার সাথে চিকিৎসা সেবা চালিয়ে যাচ্ছেন। প্রফেসর ভিথোলকাসের নিকট প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত সকল মেডিকেল প্র্যাকটিশনার ও হোমিওপ্যাথের তালিকা দেখতে এখানে ক্লিক করুন

প্রফেসর ভিথোলকাস ছাড়াও আমি প্রখ্যাত ভারতীয় হোমিওপ্যাথ ফারুক জে মাস্টার, এমডি, পিএইচডি এর নিকটে হাতে কলমে ক্লিনিক্যাল প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেছি।

ডা. ফারুক জে মাস্টার ও প্রফেসর জর্জ ভিথোলকাসের নিকট প্রশিক্ষণ গ্রহণের পূর্বে আমি ঢাকা হতে অত্যন্ত সফলতার সাথে ডিএইচএমএস (ডিপ্লোমা ইন হোমিওপ্যাথিক মেডিসিন এন্ড সার্জারী) কোর্স সম্পন্ন করি। এরও পূর্বে আমি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগ হতে বিএসএস (অনার্স) ও এমএসএস ডিগ্রী অর্জন করি। পরে আমি অষ্ট্রেলিয়ার সেন্ট্রাল কুইন্সল্যান্ড বিশ্ববিদ্যালয় হতে এমবিএ ডিগ্রী অর্জন করেছি। এছাড়া আমি ইসলামিক অনলাইন বিশ্ববিদ্যালয় হতে ৪ বছর মেয়াদি বিএসসি ইন সাইকোলজি কোর্স এবং সুইজারল্যান্ড হতে ৬ মাস মেয়াদি লীন এন্ড হেলদি কোর্স এবং ওয়েল কোর্স সম্পন্ন করেছি।

আমি উপরোক্ত দুজন হোমিও গুরুর নিকট হতে হোমিওপ্যাথির অনেক বাস্তব, প্রায়োগিক ও গবেষণালব্ধ জ্ঞান অর্জন করেছি যা আমার চিকিৎসা জীবনে প্রতিনিয়ত কাজে লাগছে।

আমি ১৯৯৫ হতে আজ পর্যন্ত বাংলাদেশের শীর্ষ প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ লোক-প্রশাসন প্রশিক্ষণ কেন্দ্র (বিপিএটিসি), সাভারে অনুষদ সদস্য হিসেবে কর্মরত। বর্তমানে আমি পরিচালক পদে কর্মরত।

কেন আমি হোমিওপ্যাথ হলাম?

আপনারা প্রশ্ন রাখতে পারেন কেন আমি একটি সরকারী চাকুরি করার পরও হোমিওপ্যাথির প্রতি এতটা আকৃষ্ট হলাম। কারণটি হলোঃ

১৫-১৬ বছর বয়স হতে আমি এ্যালোপ্যাথিক ডাক্তারের ডায়গনসিস অনুযায়ী ক্রণিক ডায়রিয়া, কোল্ড এ্যালার্জি এবং কিছু চর্মরোগে ভুগছিলাম। আশির দশকের মাঝামাঝি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির পর হতে সমস্যাগুলি প্রকট আকার ধারণ করে যা আমার দৈনন্দিন স্বাভাবিক জীবনযাত্রাকেও ব্যাহত করতে থাকে। একটানা প্রায় ১০ বছর আমি বিশেষজ্ঞ এ্যালোপ্যাথিক ডাক্তারের পরামর্শ মতে প্রচুর ঔষুধ সেবন করেছি। কিন্তু একসময় আমি বুঝতে পারি এজাতীয় চিকিৎসা আমাকে প্রকৃতপক্ষে কোন সাহায্যই করছেনা। ঔষুধের পার্শ্ব প্রতিক্রিয়ায় আমার অবস্থা দিন দিন জটিল হতে জটিলতর হতে থাকে। এক সময়ে আমি হোমিওপ্যাথির কিছু মৌলিক পুস্তক অধ্যয়ন শুরু করি এবং আমার চিকিৎসার জন্য একজন অভিজ্ঞ হোমিওপ্যাথের শরণাপন্ন হই। রোগী হিসেবে আমি প্রত্যক্ষ করলাম হোমিওপ্যাথি অত্যন্ত দ্রুত ও স্থায়ীভাবে আমার যাবতীয় সমস্যার সমাধান করেছে। এরপর আমি আর চিকিৎসার জন্য পিছন ফিরে দেখিনি। কিন্তু সেই সময়ের কথা আমি আজও ভুলতে পারিনা যখন আমাকে প্রায় প্রতি সপ্তাহে নিয়মিতভাবে বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের কাছে যেতে হতো, ঐ চিকিৎসার মারাত্মক ক্ষতিকর প্রতিক্রিয়া জেনেও।

হোমিওপ্যাথি আমাকে নতুন পথের সন্ধান দিয়েছে, আমাকে একজন পূর্ণ মানুষ হিসেবে বিবেচনা করেছে। আমি বুঝতে পারি হোমিওপ্যাথি মানুষের রোগের চিকিৎসা করেনা বরং রুগ্ন মানুষটির চিকিৎসা করে। কারণ, রুগ্ন মানুষটি সুস্থ হলেই তার রোগের নাম যাই হোক না কেন তা আরোগ্য হয়ে যায়। সাধারণ মানুষের কাছে হোমিওপ্যাথি সম্পর্কে ব্যাপক সচেতনতা ও বিশ্বাস হোমিওপ্যাথিকে পেশা হিসেবে নিতে আমাকে সাহায্য করেছে।

একটি স্মৃতিচারণ এখানে না করলেই নয়। খুব ছোটবেলায় আমার বাবাকে দেখতাম ক্ষুদ্র পরিসরে হোমিও চিকিৎসা প্রদান করতেন। সকাল-বিকেল তাঁর কাছে প্রতিদিনই কিছু রোগী আসতেন। তিনি রোগীদের কেস নিয়ে, বই-পুস্তক অধ্যয়ন করে তাদের চিকিৎসা দিতেন। আমার মনে আছে তিনি ঔষুধ নির্বাচনের পর আমাকে তা তৈরী করতে নির্দেশ দিতেন। আমি তাঁর নির্দেশমত ঔষুধ প্রস্তুত করে রোগীকে দিতাম। প্রাথমিক বিদ্যালয়ে অধ্যয়নকালীন আমি ২০০ এর অধিক ওষুধের নাম জানতাম। তখন হোমিওপ্যাথির মাহাত্ম্য বুঝতে না পারলেও আমার নিজের জীবন যখন বিপন্ন হলো তখন আমি নিজেই ছোটবেলায় বাবার হোমিও চিকিৎসাসেবার সেই স্মৃতিকে স্মরণ করে হোমিওপ্যাথির দারস্থ হলাম এবং চমৎকারভাবে উপকৃত হয়ে নতুন জীবন ফিরে পেলাম।

আমার অভিজ্ঞতা

হোমিওপ্যাথ হিসেবে এই কথার প্রতি অত্যন্ত আস্থা রাখি যে অসুস্থ রোগীকে সুচিকিৎসার মাধ্যমে সুস্থ করতে পারলে অর্থাৎ তার রুগ্ন ও বিশৃংখল জীবনী শক্তিতে সাম্যাবস্থা ফিরিয়ে আনতে পারলে রোগীর রোগের নাম যা কিছুই হোকনা কেন তা আরোগ্য হবে ইনশাল্লাহ্। হোমিওপ্যাথি যদিও পূর্ণ মানুষের চিকিৎসা করে তবুও আমি চিকিৎসক হিসেবে অনেক জটিল রোগে আক্রান্ত রোগীকে সফলতার সাথে আরোগ্য করেছি। এর মধ্যে পুরুষ ও মহিলাদের নানান ধরণের জটিল রোগ, কোষ্ঠকাঠিন্য, পাইলস্, আইবিএস, চর্মরোগ, হাঁপানি, হরমোনাল সমস্যা, বন্ধ্যাত্ব, আথ্রাইটিস, বাতজ্বর, গ্যাসট্রিক, পেপটিক আলসার, জন্ডিস, হেপাটাইটিস, টনসিলাইটিস, নাকের পলিপ, টিউমার, সিস্ট, নানা ধরণের মানসিক ও আবেগিক সমস্যা আমি অত্যন্ত সফলতার সাথে চিকিৎসা করেছি। আমি বিশ্বাস করি অন্য কোন চিকিৎসার মাধ্যমে রোগীর রোগলক্ষণ অধিক পরিমাণে চাপা না পড়লে বা রোগীর কেসটি অধিক জটিল না হলে কিডনীরোগ, ক্যান্সার, ডায়বেটিস, হৃদরোগ ইত্যাদিও অন্য যেকোন চিকিৎসা ব্যবস্থার চেয়ে হোমিওপ্যাথি দ্বারা সফল ভাবে চিকিৎসা করা সম্ভব।

Dr. BM Benojir Ahmed

This is Dr. Benojir, a Classical Homeopath. I have obtained International degree in Classical Homeopathy from the International Academy of Classical Homeopathy (IACH, Greece), one of the most eminent and reputed Homeopathic Training Institutes in the world. IACH was founded by the world-famous homeopathic guru Prof. George Vithoulkas. In recognition to the contributions of Prof. George Vithoulkas to homeopathy, he received the Alternate Nobel Prize or Right to Livelihood Award in 1996. He has already trained 20,000 medical doctors and homeopaths from 75 countries and is continuing his teaching with great success. To see a list of all medical practitioners and homeopaths worldwide who have been trained by Prof. Vithoulkas Click Here

In addition to the training of Prof. Vithoulkas, I have undergone hands-on clinical training with renowned Indian homeopath Farokh J Master, MD, PhD.

Before receiving training from Farokh J Master and Prof. George Vithoulkas.I have successfully completed the DHMS (Diploma in Homoeopathic Medicine and Surgery) course from Dhaka. Prior to this, I have obtained BSS (Hons) and MSS degrees from the Department of International Relations, Dhaka University. Later I have obtained an MBA from the University of Central Queensland in Australia. I have also completed a 4-year BSc in Psychology degree from Islamic Online University and two 6-month course namely: “Lean and Healthy course” & “Worship Energy Love & Legacy [WELL} Course” from Switzerland.

I have obtained a lot of practical, clinical and research-based knowledge & information about classical homeopathy from the above two homeopathic gurus which is always useful in my everyday homeopathic practice.

Since 1995, I have been working as a Faculty Member at Bangladesh Public Administration Training Center (BPATC), Savar, the apex training institute in Bangladesh. I am currently working as a Director.

Why I Became a Homeopath?

You may ask why I am so attracted to homeopathy even after doing a government job. The reason is:

From the age of 15-16, I was diagnosed with chronic diarrhea, cold allergies and some skin diseases according to the diagnosis of the Specialist Allopathic Medical Doctor. Since I was admitted to Dhaka University in mid-eighties, the problems have become so acute that I could not able to maintain my daily activities properly. For almost 10 years, I had taken a lot of medicine upon the advice of Specialist Medical doctors. But nothing could help me. One day I realized that such treatment was not really helping me. My condition continued to worsen day by day due to the side effects of the multiple allopathic medication. At one point I started studying some basic books of homeopathy and decided to consult an experienced homeopath for my treatment. As a patient, I have noticed that homeopathy has discussed all my problems and solved them very quickly and permanently. After that I never looked back for treatment. But I still remember the time when I had to go to a specialist allopathic doctor almost every week, knowing the serious side effects of that treatment.

Homeopathy has given me a new path & new life, considering me as a human being. I understand that homeopathy does not cure human disease but treats the sick person. Because, once the sick person recovers, whatever the name of his disease gets cured. The widespread awareness and belief about homeopathy among the general public has helped me to take up homeopathy as a profession.

In this instance, let me share something from my memory. When I was very young, I used to see my father practicing homeopathic medicine on a small scale. Some patients used to come to him every morning and afternoon. He used to take their cases & study books and give them treatment. I remember he would instruct me to prepare the selected medicine. I would prepare the medicine as per his instructions and give it to the patient. While studying in primary school, I knew the names of more than 200 medicines. Although I did not understand the greatness of homeopathy at that time, when my own life was in danger, I myself became a master of homeopathy by remembering that memory of my father’s homeopathic practice as a child and got a new life after benefiting from it.

My Experience

As a homeopath, I have great faith in the saying that if the sick patient can be cured through proper homeopathic treatment, that is, if he can restore his sick and chaotic vitality, the patient’s disease will be cured no matter what the name of the disease is inshaAllah. Homeopathy treats whole human organism holistically considering the patient’s physical, mental, emotional symptoms. As a physician I have successfully cured patients with many complex chronic diseases. These include various diseases of men and women like – constipation, piles, IBS, skin diseases, asthma, hormonal problems, sterility, arthritis, rheumatism, gastric, peptic ulcer, jaundice, hepatitis, tonsillitis, nasal polyps, tumors, cysts. Kidney disease, cancer, diabetes, heart disease, etc. can be treated more successfully by homeopathy than any other medical system unless the patient’s symptoms are not suppressed or the patient’s case is not more complicated by any other suppressive treatment.